ই শ্রম কার্ড অনলাইন করার উপায় | e shram card online apply

 পশ্চিমবঙ্গের বাইরে কি একজন শ্রমিক হিসেবে কাজ করেন? তাহলে আপনি ই শ্রম কার্ড অনলাইন আবেদন করে একগুচ্ছ সুবিধা পেতে পারেন সম্পূর্ণ বিনা খরচায়। আজকে আমরা আলোচনা করব "ই শ্রম কার্ড কি"? এই কার্ড এর সুবিধা ও অসুবিধা কি কি রয়েছে এবংe shram card online apply এই সমস্ত তথ্য এই আর্টিকেলের মধ্যে জানতে পারবেন।

  • ই শ্রম কার্ড কি?
  • ই শ্রম কার্ড অনলাইন?
  • ই শ্রম কার্ড অনলাইন আবেদন যোগ্যতা?
  • ই শ্রম কার্ড আবেদন কোথায় করবেন?
  • ই শ্রম কার্ড মোবাইল দিয়ে আবেদন?
  • ফোন নাম্বার আধার লিঙ্ক ছাড়া ই শ্রম কার্ড আবেদন
  • ই শ্রম কার্ডে ফটো আসেনা কেন?
  • ই শ্রম কার্ড সুবিধা কি?  
shram card online apply

 ই শ্রম কার্ড কি?  

ভারতে প্রায় 30 কোটি মানুষ আছে  যারা অসংগঠিত শ্রমিক। ভারতের প্রধানমন্ত্রী নতুন একটি যোজনা শুরু করেছে যার নাম e-shram portal। এই যোজনা মাধ্যমে ভারতের অসংগঠিত শ্রমিক ভারত সরকারের  হিসেবের মধ্যে থাকে এবং কোন দুর্ঘটনাজনিত  কারণে মৃত্যু হলে এই কার্ডের মাধ্যমে  দু লাখ টাকা পর্যন্ত লাইভ কভারেজ পেতে পারে এছাড়া হাসপাতালের খরচ বাবদ  1 লাখ টাকা পর্যন্ত সুবিধা পেতে পারে যদি আপনার এই কার্ডে থাকে।

ই শ্রম কার্ড অনলাইন?

পশ্চিমবঙ্গের অনেক মানুষ আছে যারা এই ই শ্রম কার্ড অনলাইন অলরেডি আবেদন করে ফেলেছে। আপনি যদি আবেদন করতে চান তাহলে ভারতের e-shram portal  এর অফিশিয়াল ওয়েবসাইট e-shram.gov.in এই ওয়েবসাইট থেকে আপনারা খুব সহজে আবেদন করতে পারেন।

ই শ্রম কার্ড অনলাইন আবেদন যোগ্যতা?

ই শ্রম কার্ড তৈরি করার সে রকম কিছু কাইটেরিয়া দেওয়া নেই। নিম্নলিখিত পয়েন্ট গুলির মধ্যেআপনি যদি হয়ে থাকেন তাহলে এই কার্ডের জন্য আবেদন করতে পারেন।

পরিযায়ী শ্রমিক হতে হবে

ষোল থেকে 59 বছর বয়স বয়স পর্যন্ত যে কেউ আবেদন করতে পারে 

ছেলে মেয়ে উভয় আবেদন করতে পারি

ভারতের স্থায়ী নাগরিক হতে হবে

 যে কোন কোম্পানির যদি স্থায়ী চাকরি করে থাকেন EPFO, ESIC মধ্যে থাকেন তাহলে আবেদন করতে পারবে না।

ই শ্রম কার্ড আবেদন কোথায় করবেন?

আপনি যদি এই কার্ড এর জন্য রেজিস্ট্রেশন করতে চাইছেন তাহলে আপনি অনলাইনে রেজিস্ট্রেশন করতে পারবেন। ভারতীয় শ্রম কার্ড অনলাইন এপ্লাই এর জন্য eshram.gov.in এই ওয়েবসাইটে গিয়ে খুব সহজে আপনারা আপনার মোবাইল দিয়ে অনলাইন রেজিস্ট্রেশন করতে পারেন।

 ই শ্রম কার্ড মোবাইল দিয়ে আবেদন?

আপনি কিন্তু আপনার মোবাইল থেকে ই শ্রম কার্ড রেজিস্ট্রেশন করে আবেদন করতে পারেন কিন্তু এর জন্য আপনার আধার কার্ড এর সঙ্গে ফোন নাম্বার যোগ থাকা অবশ্য প্রয়োজন রয়েছে। যদি আপনার ফোন নাম্বারের সঙ্গে আধার কার্ডের লিঙ্ক না থাকে তাহলে আপনি আপনার স্থানীয় পোস্ট অফিসে গিয়ে মাত্র 50 টাকার বিনিময়ে আধার কার্ডের সঙ্গে ফোন নাম্বার যোগ করে ইশ্রম কার্ড আবেদন করতে পারবেন।

ফোন নাম্বার আধার লিঙ্ক ছাড়া ই শ্রম কার্ড আবেদন পদ্ধতি?

যদি আপনি আধার কার্ডের সঙ্গে ফোন নাম্বার লিঙ্ক করতে পারছেন না তাহলে আপনার স্থানীয় সিএসসি সেন্টার এগিয়ে ই শ্রম কার্ড রেজিস্ট্রেশন করাতে পারবেন। সিএসসি সেন্টার  তে আপনি আপনার আধার কার্ড এবং অন্যান্য ডকুমেন্ট গুলো নিয়ে যাবেন, ফিঙ্গারপ্রিন্ট এর মাধ্যমে বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে খুব সহজে আপনি আপনার ই শ্রম কার্ড তৈরি করতে পারেন।

 ই শ্রম কার্ডে ফটো আসেনা কেন?

আপনারা অনেকেই অনলাইন আবেদন করেছেন মোবাইলের মাধ্যমে কিংবা কম্পিউটারের মাধ্যমে কিন্তু অনেকের কাছে ই শ্রম কার্ড ফটো ছাড়া ডাউনলোড হয়েছে। এটা হয়তো আপনার সঙ্গে ঘটেনি, অনেকের কার্ডের মধ্যে ফটো আসছে না। বেশীরভাগ সময়ই দেখা গেছে অতিরিক্ত ট্রাফিক এবং আধার কার্ডের সঙ্গে ঠিকঠাকভাবে ই শ্রম পোর্টাল এর সঙ্গে  লিংক হতে পারছে না। যদি আপনারা রাতের দিকে অনলাইন আবেদন করেন তাহলে ফটো সমেত আপনি ই শ্রম কার্ড ডাউনলোড করতে পারবেন। যদি আপনি আবেদন করে ফেলেছেন এবং ফটো আসছে না তাহলে কিছু করার নেই আপনি এরপর যতবারই ডাউনলোড করেন না কেন একই প্রবলেম দেখাবে। যতটা গুরুত্ব  ফটো থাকা ই শ্রম কার্ড  ততটা গুরুত্ব থাকবে ফটো ছাড়া কার্ড এর মধ্যে। অতএব  Why the photo is not on the e-shram card একটা টেনশন করে কোন লাভ নেই।

ই শ্রম কার্ড সুবিধা কি?

ই শ্রম কার্ড সুবিধা কথা বলতে গেলে প্রথমত 2 লক্ষ টাকা একসিডেন্টে মৃত্যু হয়ে গেলে এবং এক লাখ টাকা পর্যন্ত হতে পারে সুবিধাভোগীর কোন সার্জারি করাতে ব্যবহার করতে পারেন। এর জন্য প্রত্যেক বছর আপনার 12 টাকা করে ব্যাংক থেকে কেটে নেওয়া হবে ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি থেকে।

এছাড়া পরিযায়ী শ্রমিক এর জন্য আরো পরবর্তী সময়ে বারোটি প্রকল্প বা যোজনা যোগ করা হবে বলে আশা করা যাচ্ছে। বর্তমান এই যোজনার সঙ্গে যুক্ত হলো জন ধন যোজনা এবং পরবর্তীকালে আরো আপডেটেড এর সঙ্গে জানানো হবে এই পোর্টালের সমস্ত রকম সুযোগ।

পশ্চিমবঙ্গের বাইরে একজন শ্রমিক হিসেবে কাজ করেন তাহলে আপনি ই শ্রম কার্ড অনলাইন আবেদন এক্ষুনি করুন এবং একগুচ্ছ সুবিধা পেতে পারেন সম্পূর্ণ বিনা খরচায়। আজকে আমরা আলোচনা  করলাম ই শ্রম কার্ড কি? এই কার্ড এর সুবিধা ও অসুবিধা কি কি রয়েছে এবং e shram card এই সমস্ত তথ্য এই আর্টিকেলের মধ্যে জানাতে পারলাম এবং এই লিঙ্কে ক্লিক করে e-shram অফিশিয়াল ওয়েবসাইটে পৌঁছে যাবেন এবং এখান থেকে অনলাইন আবেদন করতে পারেন। আর্টিকেলটি সম্পন্ন করার জন্য ধন্যবাদ।

Previous
Next Post »